বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৯, ২০১৭

প্রচ্ছদ > জাতীয় তথ্যপ্রযুক্তি বিতর্ক উৎসব > জাতীয় তথ্য প্রযুক্তি বিতর্ক উৎসবে চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

জাতীয় তথ্য প্রযুক্তি বিতর্ক উৎসবে চ্যাম্পিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

অতিথিদের থেকে পুরস্কার নিচ্ছে বিজয়ী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকরা

অতিথিদের থেকে পুরস্কার নিচ্ছে বিজয়ী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকরা

সিটুসি ডেস্ক :

উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হল জাতীয় তথ্য প্রযুক্তি বিতর্ক উৎসবের জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা । জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী হওয়ার গৌরব অর্জন করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং রানার আপ হয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় । জাতীয় পর্যায়ে সারাদেশের ১৬ টি আঞ্চলিক প্রতিযোগিতার বিজয়ী ও রানার্স আপ ৩২টি দল অংশগ্রহন করে ।

৪ জুন বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে দিনব্যাপী প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয় ।  চ্যাম্পিয়ন দলের সদস্যরা হলেন এহসানুর রহমান আবীর, মাহবুবুল ইসলাম, সৈকত ও ইথার আদিব রহমান/  শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হন চ্যাম্পিয়ন দলের মাহবুবুল ইসলাম

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ,জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা . তৌফিক-ই এলাহী চৌধুরী, বীর বিক্রম । তিনি উপস্থিত তরুণ বিতার্কিকদের উদ্দ্যেশে বলেন ‌‍‘স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ আমরা পেয়েছি যুক্তির মধ্য দিয়ে । মহান মুক্তিযুদ্ধে জয় হয়েছিল যুক্তির । যে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন আমরা দেখছি সেই স্বপ্ন শুধু তরুণেরাই বাস্তব করতে পারে । সমাজের সর্বস্থরে প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়তে তোমাদেরকেই নেতৃত্ব দিতে হবে ।“

অনুষ্ঠানে গেস্ট অফ অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক । গেস্ট অফ অনার এর বক্তব্যে জুনাইদ আহমেদ পলক তরুণদের তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে নতুন কিছু উদ্ভাবনের দিকে মনোনিবেশ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন,  বলেন, “তরুণদের আছে অদম্য সাহস । সমাধানের সাহস নিয়ে এগিয়ে আসে তরুণেরাই ।  তথ্য-যুক্তি-প্রযুক্তি নির্ভর এমন এক দক্ষ তরুণ প্রজন্ম আমাদের বিনির্মাণ করতে হবে যারা ২০২১ সালের মধ্যে আমাদের মধ্যম আয়ের দেশে উপনীত করতে পারবে। আইসিটি খাতে ২০০ মিলিয়ন তরুনের কর্মসংস্থানের করতে চাই আমরা । এখন বাংলাদেশি অনেক কোম্পানি দেশের বাইরেও সাফল্যের সঙ্গে প্রযুক্তি বিষয়ক ব্যবসায় অবদান রাখছে। ফলে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে রেমিটেন্স বাড়ছে। আগামীতে জিডিপির ৫ % শতাংশ অবদানই রাখবে তথ্যপ্রযুক্তি খাত। যার নেতৃত্বে থাকবে প্রযুক্তি-দক্ষ তরুণ প্রজন্ম।তরুণরাই গড়বে নতুন দেশ, ডিজিটাল হবে বাংলাদেশ । ”

অতিথিদের সাথে রানার্স আপ দল বুয়েট

অতিথিদের সাথে রানার্স আপ দল বুয়েট

জনাব নাহিম রাজ্জাক এমপি তার বক্তব্যে “দেশের তরুণদের নীতিনির্ধারণে যুক্ত করে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে বর্তমান সরকার । দেশের আনুমানিক ৬৪% জনগোষ্ঠী তরুণ । এই তরুণদের হাতে প্রযুক্তি এবং সেই প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে বাংলাদেশ ।”
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য জনাব নাহিম রাজ্জাক এমপি, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী সম্পাদক রোবায়েত ফেরদৌস মিডিয়া আইনজীবী ও প্রাক্তন বিতার্কিক প্রশান্ত ভূষন বড়ুয়া, সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইনফরমেশন এর নির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন শামস, বাংলাদেশ ডিবেট ফেডারেশন এর সাবেক সভাপতি বুলবুল হাসান ।

অতিথিদের সাথে জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণকারী ৩২ টি দলের সদস্যরা

অতিথিদের সাথে জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণকারী ৩২ টি দলের সদস্যরা

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বুয়েট এর অধ্যাপক কায়কোবাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, বাংলাদেশ ডিবেট ফেডারেশন(বিডিএফ) এর সভাপতি সঞ্জীব সাহা, ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ারের এডিটর ফিরোজ জামান চৌধুরী, বিডিএফ এর সাধারন সম্পাদক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শুকরানা,  অক্সফামের আইটি ডিরেক্টর তাপস রঞ্জন চক্রবর্তী, প্র্যাকটিক্যাল অ্যাকশন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিন জাহান ।

সভাপতির বক্তব্যে জনাব শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন,’ তথ্য প্রযুক্তি ছাড়া এখন জীবন অচিন্তনীয়। “ডিজিটাল বাংলাদেশ” রূপকল্পের পর থেকে গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের প্রতিক্ষেত্রে অগ্রগতি হয়েছে, এর মূলে অন্যতম চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করেছে তথ্যপ্রযুক্তি। তথ্য এবং প্রযুক্তি সকলকে একই প্ল্যাট ফরমে আনতে সক্ষম হয়েছে ।’

“তথ্য-জুক্তি-প্রযুক্তি” স্লোগানে আইসিটি ডিভিশন জাতীয় তথ্য প্রযুক্তি বিতর্ক উৎসবের আয়োজন করছে বাংলাদেশ ডিবেট ফেডারেশন এবং ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার (www.campus2career24.com)। সার্বিক সহযোগিতায় রয়েছে সিআরআই।

এছাড়াও এই আয়োজনে পার্টনার হিসেবে রয়েছে মনাশ ইউনিভার্সিটি, অক্সফাম, প্র্যাকটিকাল আ্যাকশন, টেকশহর ডটকম, একাত্তর টিভি, ও ঢাকা ইউনিভার্সিটি আইটি সোসাইটি ।

পাঠকের মন্তব্য

আপনার ই-মেইল অপ্রকাশিত থাকবেবক্সটি পূরণ করুন *

*

Pin It on Pinterest

Shares
Share This