বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৯, ২০১৭

প্রচ্ছদ > ক্যাম্পাস > বৈশাখী উচ্ছ্বাসে ডিইউমুনা !!!

বৈশাখী উচ্ছ্বাসে ডিইউমুনা !!!

Picture of Pohela Baishakh

সাদিয়া বিনতে জামানঃ 

গত ১৫ই এপ্রিল বিপুল উৎসাহ ও উদ্দিপনার মধ্য দিয়ে ঢাকা ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড নেশন্স এসোসিয়েশন (ডিইউমুনা) আজ  ‘বৈশাখী উচ্ছ্বাসে ডিইউমুনা’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তারা নতুন বছরকে বরণ করে নিয়েছে ।অনুষ্ঠানটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিরাজুল ইসলাম অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডিইউমুনার সাবেক সাধারন সম্পাদক ও বর্তমানে ইউএনডিপিতে কর্মরত জনাব সিদ্ধার্থ গোস্বামী প্রবাল, প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য ও বর্তমানে ইউএনএফপিএতে কর্মরত জনাব হাবিবুর রহমান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ডিইউমুনার বর্তমান সভাপতি জনাব মোস্তফা আমির ফয়সল, সহ-সভাপতি সাজেদুর রহমান সবুজ, সাব-কমিটি  প্রধান রুবাইয়াত সাইমুম এবং অন্যান্য কমিটি সদস্যরা সহ নতুন সদস্যরা।

২য় বারের মত এ নববর্ষ উদযাপনে চিরাচরিত ধারা অনুযায়ী উদ্বোধনী গান ‘এসো হে বৈশাখ’ এর মাধ্যমে সংগঠনটি নতুন বর্ষকে বরণ করে নেয়। এরপর বর্তমান সভাপতি জনাব মোস্তফা আমির ফয়সল তার উদ্বোধনী বক্তব্যর মাধ্যমে এই বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন। তিনি এর যাবতীয় কার্যক্রম এবং এগুলো কিভাবে জাতিসংঘ কে অনুসরণ করে এগিয়ে চলেছে তার একটি রূপরেখা দেখিয়েছেন । যেখানে তিনি জাতিসংঘের গঠন, এর কৃষ্টি,  সংস্কৃতি বিষয়ক কার্যাবলীকেও তুলে ধরেছেন।

এই বৈশাখী উৎসবে ডিউমুনার উদ্দেশ্য ছিল দেশীয় সংস্কৃতিকে তুলে ধরা। তাই, দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ৮ টি বিভাগের প্রতিনিধিরা বিভিন্ন আঙ্গিকে তাদের বিভাগীয় ঐতিহ্য , আচার-প্রথা, সংস্কৃতিকে তুলে ধরেছেন আজকের এ আয়োজনে।

উৎসবের ২য় পর্বে , ডিইউমুনার সদস্যদের জন্য একটি কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়, যার মুল বিষয়বস্তু ছিল বাংলাদেশের কৃষ্টি, ঐতিহ্য ও বিভিন্ন অঞ্চলভিত্তিক সংস্কৃতি। এ পর্বটি পরিচালনা করেন রাফীদ রহমান তূর্য ও কে এম রাফসান রাব্বি।সর্বশেষ পর্বে ,বাংলাদেশের হারানো ঐতিহ্যর ইতিহাস ও গুরুত্ব  সম্পর্কে তরুন প্রজন্মকে কিছু মাত্রায় অবলোকন করানোর জন্য ডিইউমুনা একটি আন্তরিক প্রয়াস চালিয়েছে। ডিইউমুনার সদস্য, কাঞ্জিলাল রায় সুনিপুন ভাবে তার সপ্রতিভ বক্তব্যর মাধ্যমে বাংলাদেশের বিভিন্ন হারানো কৃষ্টি, ঐতিহ্য সম্পর্কে আলোকপাত করেছেন।এরপর জনাব সিদ্ধার্থ গোস্বামী প্রবাল তার বক্তব্যর মাধ্যমে এটিকে একটি সময়োপযোগী ও তরুনদের  মধ্যে সংস্কৃতি চর্চার একটি অন্যতম প্রয়াস হিসেবে অভিহিত করেন।

বৈশাখের এই বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সামগ্রিক উপস্থাপনার দায়িত্তে ছিলেন ডিইউমুনার কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সাদিয়া বিনতে জামান ও স্বর্ণা দে। ডিইউমুনা আশা রাখে অদূর ভবিষ্যতে এ ধরনের আরও অনেক অনুষ্ঠান পরিচালনা করার যা বাঙালি সংস্কৃতিকে ধরে রাখার জন্য  একটি নতুন পদক্ষেপ হিসেবে গৃহীত হবে। সর্বোপরি, বাঙালি সংস্কৃতিকে নতুন রুপে উপস্থাপন করাই ছিল এ আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য।

 

 

পাঠকের মন্তব্য

আপনার ই-মেইল অপ্রকাশিত থাকবেবক্সটি পূরণ করুন *

*

Pin It on Pinterest

Shares
Share This