রবিবার, নভেম্বর ১৯, ২০১৭

প্রচ্ছদ > ক্যাম্পাস > শান্তি প্রতিষ্ঠা ও তরুণ নেতৃত্ব গঠনে ডিইউমুনার কর্মশালা

শান্তি প্রতিষ্ঠা ও তরুণ নেতৃত্ব গঠনে ডিইউমুনার কর্মশালা

DUMUNA WS

সাদিয়া বিনতে জামানঃ

২৯ এপ্রিল ঢাকা ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড নেশন্স এসোসিয়েশন (ডিইউমুনা) যুবসত্ত যৌথভাবে তরুন নেতৃত্ব ও শান্তি প্রতিষ্ঠা বিষয়ক একটি কর্মশালার আয়োজন করে। কর্মশালাটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিরাজুল ইসলাম অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী শান্তি ও সম্প্রীতি স্থাপনের লক্ষে গঠিত এ সংগঠনটি ভারতের চন্ডীগড় থেকে বাংলাদেশে এসেছে এবং এখানে তাদের কার্যক্রমকে তরুন প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।

কর্মশালাটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব অজাত শত্রু, প্রোগ্রাম কো-অরডিনেটর ,জিওআইপিএফ (গ্লোবাল ইয়ুথ পিস ফেস্টিভাল )।এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন ডিইউমুনার বর্তমান সভাপতি ও জিওআইপিএফ বাংলাদেশ এর অ্যাম্বাসেডর জনাব মোস্তফা আমির ফয়সল, সাধারন সম্পাদক শারমিন আক্তার শাকিলা সহ ডিইউমুনা’র কমিটি ও সাধারন সদস্যবৃন্দ।

কর্মশালাটি শুরু হয় পরিচয় পর্বের মধ্য দিয়ে যেখানে প্রথমে ডিইউমুনার সাধারন সম্পাদক হিসেবে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন শারমিন আক্তার শাকিলা।এরপর সভাপতি জনাব মোস্তফা আমির ফয়সল তার বক্তব্যর মাধ্যমে গ্লোবাল ইয়ুথ পিস ফেস্টিভাল ২০১৬ তে ডিইউমুনা প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণের কিছু অভিজ্ঞতা, এ সংগঠনটির সাথে তাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং এ উৎসবটির গুরুত্ব তুলে ধরে জিওআইপিএফ ২০১৭ তে সবাইকে অংশগ্রহণের জন্য উৎসাহিত করেন।

২য় পর্বে জিওআইপিএফ এর প্রোগ্রাম কো-অরডিনেটর জনাব অজাত শত্রু কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী সবার সাথে মতবিনিময় করেন।এখানে তিনি তার কিছু ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার কথা বলেন এবং কিছু ট্রেইনিং এর মাধ্যমে সবাইকে নতুনভাবে উজ্জীবিত করেন।এ সেশনটিতে কর্মশালায় উপস্থিত সকলেই স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে। উল্লেখ্য, এখানে তিনি জিওআইপিএফের বিভিন্ন কার্যক্রমকে তুলে ধরেন।যার মধ্যে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি, নতুনত্ব আবিষ্কার, নিজ সামর্থ্য সক্ষমতা বৃদ্ধি অন্যতম ।

শেষ পর্বে, সবাইকে কিছু দলে ভাগ করা হয় এবং তাদেরকে সম্মিলিতভাবে কিছু  দলগত কাজ দেয়া হয়। এর মাধ্যমে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে শান্তি স্থাপন, এর প্রয়োজনীয়তা ও তরুণদের ভূমিকা সম্পর্কে কিছু ধারনা দেয়া হয় এবং এভাবে গতানুগতিক ধারার বাইরে গিয়ে কর্মশালাটি সবার মাঝে একটি ভিন্ন রকম উৎসাহ সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে।

কর্মশালায় অংশগ্রহণের অভিজ্ঞতা বর্ণনায় ডিইউমুনা সদস্য শারমিন জাহান আখি জানান, সম্পূর্ণ বিপরীতধর্মী এ কর্মশালার মাধ্যমে তিনি অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন এবং এ ধরনের প্রোগ্রাম যেন আরো আয়োজন করা হয় সে ব্যাপারে তিনি আশা ব্যক্ত করেন। অন্যদিকে, এহসানুল কবির সাগর জানান, একটি  কর্মশালা যে এতটা প্রানবন্ত ও মজাদার কিছু অভিজ্ঞতার সমষ্টি হতে পার তার উদাহরণ আজকের এ কর্মশালাটি । তার সাথে একমত পোষণ করে তাসলিমা আক্তার নাইমা জানান, এ কর্মশালাটি শান্তি প্রতিষ্ঠায় একটি আদর্শ কর্মশালা যা বিভিন্ন চিন্তাধারার মানুষকে একই ছাদের নীচে একত্র করতে পেরেছে।     ্লিমা তার সাথে একমত পোষণ করে তাস্লিমা আক্তার তিনি অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন এবং এ ধরনের প্রোগ্রাম জেন আ

মূলত, সবার মাঝে শান্তির বার্তা পৌঁছে দেয়া এবং ধর্ম, বর্ণ , গোত্র নির্বিশেষে একটি শান্তিপূর্ণ ও বাসযোগ্য পৃথিবী গড়ে তোলার প্রয়াসই ছিল এ কর্মশালার প্রধান উপজীব্য ।

পাঠকের মন্তব্য

আপনার ই-মেইল অপ্রকাশিত থাকবেবক্সটি পূরণ করুন *

*

Pin It on Pinterest

Shares
Share This