সোমবার, জুন ৫, ২০১৭

প্রচ্ছদ > ক্যাম্পাস > একটি পাখি ও মানবতার গল্প

একটি পাখি ও মানবতার গল্প

ZR9_2685

তাসিন জুলকারনাইনঃ 

সময় ৬:২০,সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় চিরাচরিত সান্ধ্য-আড্ডায় ব্যস্ত জনতা ।  কয়েকজন বড়ভাই ও বন্ধুর সাথে চা খাচ্ছিল কিছু তরুণ।হঠাৎ সেই দলটির চোখ পড়ল টিএসসির বাইরের চত্বরে এক শুকনো গাছের মগডালে পা আটকে ঝুলে থকা শালিক পাখির দিকে। মানবতার জায়গা থেকে তাদের মনে হল পাখিটিকে বাচানো দরকার। খোঁজ দিল দমকল বাহিনী কে।

কিছুক্ষণ পর সাইরেন বাজিয়ে উদ্ধারকারী গাড়ী ক্রেন সমেত হাজির।হকচকিয়ে গেল টিএসসি তে আসা সবাই।হঠাৎ ক্রেন সমেত গারি আসার কারণ কী? কোনো দুর্ঘটনা নয়ত ! না,উদ্বেগের কোনো কারণ নেই।মানব-দুর্ঘটনা ঘটেনি;দুর্ঘটনা ঘটেছে টিএসসির বাইরের চত্বরে এক শুকনো গাছের মগডালে পাখির বাসায়।একটি অভাগা শালিক পাখি ঐ বাসায় ঝুলে আছে। পা আটকে গেছে বাসার জঞ্জালে।উদ্ধারকারী সংস্থা শালিককে উদ্ধারে ঠিকই এসেছে। এসে উদ্ধারও করে শালিকটি।কিন্তু ততক্ষণে বেচারা শালিক মরে গেছে।উদ্ধার শেষে সামান্য প্রেস ব্রিফিংও হল মিডিয়ার সামনে।মৃত পাখিটি হাতে ব্রিফ দিলেন উদ্ধারকারী ব্যক্তি;যিনি ক্রেনে উঠে পাখিটি পেড়ে এনেছেন।সাংবাদিকের প্রশ্নোত্তরে বললেন, “সারাজীবন মানুষের সেবা করে গেলাম।পাখিও একটি জীব।এটিও সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি।এদের সেবা করাও মানবিক দায়িত্ব।” নিজ কানে একথা শুনে তাজ্জব বনে গিয়েছিল উপস্থিত তারুণ্যের বিশাল অংশটি ! সত্যি মানবিকতার পরিধি অসীম।

জয় হোক পরহিতৈষী চেতনার। জয় হোক এমন তারুণ্যের।  বেঁচে থাকুক এমন উপচিকীর্ষু।

 

পাঠকের মন্তব্য

আপনার ই-মেইল অপ্রকাশিত থাকবেবক্সটি পূরণ করুন *

*

Pin It on Pinterest

Shares
Share This