মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৭

প্রচ্ছদ > তারুণ্য > জিপিএ-ই সব নয়

জিপিএ-ই সব নয়

কাঞ্জিলাল রায় জীবনঃ 

গত ২৩ জুলাই প্রকাশিত হয়েছে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে । পরীক্ষার ফলাফল কেমন, কতজন জিপিএ ৫ পেয়েছে এসবের পরিসংখ্যানের দিকে আমি আর গেলাম না। প্রযুক্তির এই যুগে এসব তথ্য তোমরা অনেক আগেই জেনে গিয়েছ।আমি সরাসরি জিপিএ ৫.০০ এর এই সময়ে জিপিএ নিয়ে নিজের মতামত তুলে ধরার প্রয়াস করছি ।

প্রথমত যারা এবার জিপিএ ৫ পাও নি তাদের উদ্দ্যেশে কিছু কথা । তোমাদের মধ্যে অনেকে হয়ত মনে করছ জীবনের সকল সফলতা এই ফলাফলের মধ্যেই শেষ । আদতে এরকম কিছুই নয় । তবে এটা সত্য যে তোমাদের মধ্যে অনেকে বিশেষত যারা বিজ্ঞান থেকে পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ ৫ পাও নি তারা এখন বেশ কিছু উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারবে না, যেখানে পড়ার স্বপ্ন হয়ত ছোটবেলা থেকেই দেখে এসেছ । কিন্তু এতে আসলে খুব একটা বেশি কিছু আসে যায় না । আমরা সবাই জানি শচীন টেন্ডুলকারের কথা । ছোটবেলায় টেনিস খেলোয়াড় হতে চাওয়া শচীন ক্রিকেটার হয়ে আজ শতকোটি মানুষের অনুপ্রেরণা । টেনিস খেললে শচীন কি শচীন হয়ে উঠত ? তাই তোমরা চেষ্টা করে দেখতে পারো অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে । প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের দরজা বন্ধ হলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ তো তোমাদের থাকলই । হয়ত প্রকৌশলী হতে পারবে না কিন্তু আইনজীবী, আমলা বা উদ্যেক্তা হওয়ার রাস্তা তো আর বন্ধ হয়ে যায় নি । আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক আমাকে প্রায়ই বলেন ‘জীবনের বাস্তবতা গুলো সম্মুখীন করে বীরদর্পে এগিয়ে যাওয়ার মধ্যেই জীবনের সফলতা’ । তোমরাও নিশ্চয়ই সফল হবে ।

যারা মানবিক বা ব্যবসাশিক্ষা বিভাগ থেকে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল করতে পারো নি তাদের উদ্দেশ্যে বলব এখন অনেক কিছুই করার সুযোগ আছে । আমি আমার হলের পলাশ চন্দ্র সূত্রধর নামের একজন কে চিনি যে এইচএসসি তে জিপিএ ৫.০০ এর এই যুগে পেয়েছিল মাত্র ৩.১৫ ! সে এখন ঢাকা বিশ্বনিদ্যালয়ের শান্তি ও সংঘর্ষ বিভাগে ২য় বর্ষে পড়ে । এরকম অসংখ্য উদাহরণ আছে । তাই দমে যেও না । কারণ ভর্তি পরীক্ষার এক ঘন্টাই সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ ।

তাই তোমরা যারা এবার মনের মত জিপিএ লাভ করতে পারো নি তাদের বলব সব ভুলে গিয়ে ভর্তি প্রস্তুতির দিকে মনোযোগ দেও । কারণ সেখানেই বেশি নম্বর বরাদ্দ থাকে । তোমরা ভর্তি পরীক্ষায় ভাল করে কমাতে পারো জিপিএ তে নম্বর হারানোর ব্যবধান । এখন রেজাল্ট খারাপ নিয়ে দুশ্চিতা করলে সেই ব্যবধান শুধু বাড়বেই, কমবে না । তাই এখন পরিকল্পনা করে আগের চেয়েও বেশি মনোযোগ দিয়ে নেমে পড় ভর্তি প্রস্তুতিতে ।

এবার আসি যারা অকৃতকার্য করেছো এই পরীক্ষায় তোমাদের কাছে । শতকরার অংকে তোমরা প্রায় ৩২% । আমি মনে করি এই ফলাফলে তোমাদের পরাজয় হয় নি । কারণ তোমাদের অনেকেই পাও নি সঠিক পরিচর্যা । কারো স্কুলে হয়ত শিক্ষক ক্লাস নেয় না, নিলেও বুঝাতে পারে না । কারো পরিবারে হয়ত পড়াশুনার পরিবেশ টুকুও নেই । কাউকে হয়ত বিদ্ধ করেছিল মাদকের সর্বগ্রাসী ছোবল । তোমরা নতুন করে নবউদ্যমে আরেকবার চেষ্টা করে দেখতে পারো । বিশ্বখ্যাত প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আলিবাবার কর্ণধার জ্যাক মা-ও ফেল করেছিলেন অসংখ্য পরীক্ষায় । কিন্তু এতে তিনি দমে যান নি বলেই হয়ত আমরা আলবাবা পেয়েছি । সফলতার জন্য তো আর প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রী লাগে না। কে জানে হয়ত তোমাদের মধ্য থেকেই কেউ হবে পৃথিবী বদলে দেওয়া উদ্যোক্তা !!!

এবার আসি আমার লেখার মূল কথায় । আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি জিপিএ আসলে বড় কিছু নয় । বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি প্রতিনিয়ত এর প্রমাণ পাই। এদেশে লাখ লাখ উচ্চ জিপিএ ধারী রয়েছে । অনেকে দেশসেরা উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়েছে কিন্তু এখন বেকার । এদের না আছে মানসিক সন্তুষ্টি, এরা না আসছে দেশের-সমাজের কোন কাজে । আবার এমন অনেকেই রয়েছে যারা তথাকথিত জিপিএ ধারী নয় । কিন্তু এরা সত্যিকার অর্থে জ্ঞানার্জন করেছে । তাই নিজেদের জীবনে এরা আজ সফল ।

জিপিএ এর দিকে মনোযোগ না দিয়ে সত্যিকারের জ্ঞানার্জনে মনোযোগ দেওয়া উচিত । কারণ জ্ঞানার্জন কখনো বৃথা যায় না । আমার কথা না হলে নিজেই তাকিয়ে দেখ তোমার আশে পাশে । উদাহরণের-অনুপ্রেরণার মহাসমুদ্র দেখতে পাবে ।

অতীত গ্লানি ভুলি, এসো নতুন হাওয়ায় দুলি ।

 

(লেখক শিক্ষার্থী, ২য় বর্ষ, অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়)

 

পাঠকের মন্তব্য

আপনার ই-মেইল অপ্রকাশিত থাকবেবক্সটি পূরণ করুন *

*

Pin It on Pinterest

Shares
Share This